আমরা লাইভে English শুক্রবার, অক্টোবর ৩০, ২০২০

জাপানের ‘চায়না এক্সিট’ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ

workers-assemble-air-conditioners-040920-01

চীন থেকে কোম্পানি সরিয়ে আনলে (চায়না এক্সিট) জাপানের উদ্যোক্তাদের ভর্তুকি দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। বাংলাদেশ, ভারতসহ কয়েকটি দেশে জাপানের শিল্প উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগ চীন থেকে সরিয়ে আনা হলে এ ভর্তুকি দেওয়া হবে। শুধু কারখানা সরিয়ে নিতে নয়, সম্ভাব্যতা যাচাইয়েও ভর্তুকি দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে জাপান সরকার।

মূলত জাপানের বিনিয়োগ ব্যবস্থাপনায় বৈচিত্র্য আনতে এমন উদ্যোগ নিয়েছে জাপান। যাতে কোনো একক দেশের ওপর বিনিয়োগ কেন্দ্রীভূত না হয়। উৎপাদন খরচ কমিয়ে আনাও এর একটি লক্ষ্য।

এ তালিকায় বাংলাদেশের সঙ্গে অবশ্য ভারতের নামও রয়েছে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থায় বৈচিত্র্য আনতে ২০২০ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটে এ জন্য বরাদ্দ রাখা হয়। চীন থেকে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে (আসিয়ান) উৎপাদন সরিয়ে নেওয়া কোম্পানিগুলোর দুই হাজার ৩৫০ কোটি ইয়েন বা ২২ কোটি ১০ লাখ ডলার বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। পরবর্তীতে আসিয়ানের সঙ্গে বাংলাদেশ ও ভারতের নাম যুক্ত করা হয়েছে।

এর কারণ হিসেবে বলা হয়, কোনো একক দেশের ওপর নির্ভরশীল হতে চায় না জাপান। জানা গেছে, জাপানি শিল্পপ্রতিষ্ঠান বিশেষ করে চিকিৎসা সরঞ্জাম উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত কোম্পানিগুলোর চীনে অবস্থিত। এখান থেকে জাপানে পণ্য সরবরাহ করা হয়। কিন্তু করোনাকালে এ সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে। তাতে জাপানকে চিকিৎসা কাজে বেশ বেগ পেতে হয়।

এ জন্য কোনো পণ্য উৎপাদনেই একক কোনো রাষ্ট্রের ওপর নির্ভর করতে চাচ্ছে না জাপান সরকার। এজন্য চীন থেকে কারখানা স্থানান্তরের সম্ভাব্যতা যাচাই ও পরীক্ষামূলক উৎপাদনের জন্যও শিল্পোদ্যাক্তারা ভর্তুকি পেতে পারেন। মোট সহায়তার পরিমাণ ১০ কোটি ডলার ছুঁতে পারে।

বেশ কিছু পণ্য উৎপাদনে চীনের ওপর নির্ভরতা কমানোর পাশাপাশি আপদকালীন সময়ে চিকিৎসা সরঞ্জাম ও বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশের পণ্যের নির্বিঘ্ন সরবরাহ নিশ্চিত করতেই জাপান সরকার এ ভর্তুকির কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

জুলাইতে প্রথম দফায় যে ভর্তুকির ঘোষণা এসেছিল তাতে বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশের উৎপাদন ভিয়েতনাম ও লাওসে স্থানান্তরকারী ‘হয়া’র মতো দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় কারখানা সরিয়ে নেওয়া ৩০টি কোম্পানির জন্য এক হাজার কোটি ইয়েনের বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়। আরও ৫৭টি কোম্পানি উৎপাদন জাপানে স্থানান্তরের জন্য সুবিধা পাচ্ছে।