আমরা লাইভে English সোমবার, মে ১৬, ২০২২

মাহামারী বৃদ্ধির পর ভারতের উত্তর-পূর্বে ফিরছে লকডাউন

REPORT-3-ENG-30-06-2020-NE

ভারতের আসাম রাজ্যের রাজধানী গৌহাটিতে আবারো দুই সপ্তাহের লকডাউন আরোপ করা হয়েছে। করোনাভাইরাস মাহামারীর বিস্তার ঠেকাতে ভারতের সীমান্তবর্তী উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের প্রবেশদ্বার হিসেবে বিবেচিত স্থানটির ব্যাপারে এই সিদ্ধান্ত হয়।

আগের তিন সপ্তাহ ধরে করোনাভাইরাসের বিস্তার বাড়তে থাকায় গত ২৩ জুন নগরীর ১১টি ওয়ার্ডে সরকার একই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিল।

গত ২৭ জুন পর্যন্ত আসামের মোট শনাক্ত হয়েছে ৬,৬৪৬টি। এর মধ্যে ২,৬০১ জন ছিল অসুস্থ, আর ৪,০৩৩ জনকে রোগমুক্তির পর ছেড়ে দেয়া হয়েছিল। আসামে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৯ জন।

গত ১৫ জুন থেকে গৌহাটিতে ১০,৬১৭ জনের পরীক্ষা করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৭০০ জনের পজেটিভ হয়েছে- তাদের কেউ অন্য কোথাও যাননি। রোগটির ব্যাপক বিস্তার সত্ত্বেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও জনসমাবেশের ওপর কড়াকড়ি প্রয়োগ করতে সরকারের মধ্যে উদাসিনতা দেখা যায়।

মিডিয়ার সাথে আলাপকালে আসাম রাজ্য স্বাস্থ্য ও অর্থমন্ত্রী হিমান্ত বিশ্ব শর্মা বলেন, যে ১২ জুলাই পর্যন্ত দুই সপ্তাহের জন্য পুরো কামরূপ এলাকায় পূর্ণাঙ্গ লকডাউন পালন করা হবে। এসময় এখানকার মুদি দোকান পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

আরও পড়ুনঃ নভেম্বরের মাঝামাঝি কোভিড চূড়ান্ত পর্যায়ে যাবে ভারতে, আইসিইউ বেড, ভেন্টিলেটরের সঙ্কটের আশঙ্কা: গবেষণা

তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ব্যাংক ও সরকারি অফিসগুলো সীমিত কর্মী নিয়ে চালু থাকবে। আর এটিএম বুথ ও ওষুধের দোকান খোলা থাকবে।

আসাম ছাড়াও ঝাড়খন্ড ও পাশ্চিমবঙ্গসহ কয়েকটি রাজ্যের কয়েকটি জেলায় লকডাউন চলছে। ভারতে করোনাভাইরাসে শনাক্তের সংখ্যা ৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। বর্তমানে দেশটিতে এই রোগে অসুস্থ লোকের সংখ্যা ৩ লাখ ২২ হাজার। এখন পর্যন্ত এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১৬ হাজার ৫০৪ জন।

অবশ্য মে মাস পর্যন্ত ভারতের উত্তর-পূর্ব এলাকায় করোনার বিস্তার ভারতের অন্যান্য অংশের চেয়ে তুলনামূলক কম ছিল। কিন্তু জুন নাগাদ আসামেই করোনায় শনাক্ত লোকের সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়িয়ে যায়। সংক্রমণের দিক থেকে এর পর রয়েছে ত্রিপুরা ও মনিপুর।

অন্যান্য রাজ্য থেকে লোকজন তাদের আসামের বাড়িতে ফেরার কারণেই সম্ভবত রোগটির বিস্তার ঘটছে।

চীন, ভুটান ও নেপালের সাথে সীমান্ত থাকা সিকিম গত মাস পর্যন্ত করোনামুক্ত ছিল। কিন্তু এখন সেখানে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬০ ছাড়িয়ে গেছে। সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত ৩০ আগষ্ট পর্যন্ত স্থগিত করেছে।