আমরা লাইভে English বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৫, ২০২১

ভারত সীমান্তে উত্তেজনা: হিমালয়ে চীনের ড্রোন হেলিকপ্টারের পরীক্ষা

REPORT-2-ENG-29-09-2020-China
একটি এআর-৫০০সি মনুষ্যবিহীন হেলিকপ্টার

মূলত উচ্চভূমির অভিযানে ব্যবহার করার লক্ষ্যে চীনের নিজস্ব উদ্ভাবিত মনুষ্যবিহীন হেলিকপ্টার গত রোববার মালভূমি অঞ্চলে প্রথমবারের মতো সফল উড্ডয়ন সম্পন্ন করছে। এটা ছিলো চৌকষ ড্রোনটির সামর্থ্য প্রদর্শনের ক্ষেত্রে একটি মাইলফলক। হিমালয়ান অঞ্চলে ভারতের সঙ্গে উত্তেজনাপূর্ণ সীমান্তে এই ড্রোন পাঠানো হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। উত্তেজনার সময় এসব ড্রোন হেলিকপ্টার দিয়ে রসদ সরবরাহ ও সশস্ত্র নজরদারির কাজ করা যাবে বলে বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন।

ড্রোনটির নির্মাতা রাষ্ট্রায়ত্ব এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রি কর্পোরেশন গ্রুপ অব চায়না (এভিআইসি) সোমবার এক বিবৃতিতে জানান, এআর-৫০০সি নামক ড্রোন হেলিকপ্টারের প্রোটটাইপ বিশ্বের সর্বোচ্চ বেসামরিক বিমানবন্দর, ৪,৪১১ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত দাওচেং ইয়াদিং এয়ারপোর্ট থেকে প্রথমবারের মতো উপত্যকায় উড্ডয়ন সম্পন্ন করেছে। দেশীয়ভাবে তৈরি মনুষ্যবিহীন হেলিকপ্টারের উড্ডয়ন ও অবতরনের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে এআর-৫০০সি।

১৫ মিনিটের ফ্লাইটে বেশ কিছু পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ছিলো ক্লাইম্বিং, হোভারিং, রোটেটিং ও অন্যান্য অপারেশনগত কসরত। পরে এটি স্বাভাবিকভাবে অবতরণ করে।

এর মধ্য দিয়ে বুঝা গেছে এআর-৫০০সি সাধারণভাবে সব ধরনের ভূখণ্ডগত অবস্থায় উড্ডয়নে সক্ষম। এর উন্নয়নে তাৎপর্যপূর্ণ অগ্রগতির বিষয়টিও বুঝা গেছে বলে এভিআইসি জানায়।

গত মে মাসে আরেক বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটি ড্রোন হেলিকপ্টারটির কম উঁচু এলাকায় পরীক্ষার কথা জানিয়েছিলো। তখন বলা হয়েছিলো, এই ড্রোন নজরদারি ও যোগাযোগ রিলের কাজে ব্যবহার করা হবে। এর বাইরে কাজের মধ্যে থাকবে ইলেক্ট্রনিক ডিজরাপশন, টার্গেট ইন্ডিকেশন, ফায়ার স্ট্রাইক, কার্গো ডেলিভারি এবং পারমাণবিক বিকিরণ ও রাসায়নিক দূষণ অনুসন্ধান। 

রোববারের পরীক্ষায় দেখা গেছে, এআর-৫০০সি ৮০ কেজি পর্যন্ত ওজনের ভারত বহন করতে পারে এবং ৪,৪১১ মিটারের বেশি উচ্চতায় টানা পাঁচ ঘন্টা পর্যন্ত উড়তে পারবে। এর মানে হলো একবার মালভূমি মিশনে গিয়ে এটা ৩০ জনের বেশি মানুষের জন্য একদিনের উপযোগী জীবনরক্ষাকারী খাবার সরবরাহ করতে পারবে।

সামরিক এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ ফু কিয়ানশাও গ্লোবাল টাইমসকে বলেন, হালকা বাতাস ও আকাশের অনেক উচ্চতা রোটর ও ইঞ্জিন ডিজাইনিংয়ের ক্ষেত্রে বড় চ্যালেঞ্জ। এআর-৫০০সি ড্রোন হেলিকপ্টারের সফলতা কারিগরি অচলাবস্থা নিরসনের ইংগিত। 

তিনি বলেন, ফিক্সড উইং ড্রোনের চেয়ে হেলিকপ্টার ড্রোন অনেক বেশি ফ্লেক্সিবল। কারণ এটি উড্ডয়নে জন্য দীর্ঘ রানওয়ের দরকার হয় না।

এমন এক সময় এআর-৫০০সি ড্রোন হেলিকপ্টারের পরীক্ষা চালানো হলো যখন ভারতের সঙ্গে সীমান্তে উত্তজনার মধ্যে রয়েছে চীন।

আসন্ন শীতের মধ্যেও যুদ্ধপ্রস্তুতি অবস্থায় থাকতে ভারতীয় সেনাবাহিনী সেখানে হাজার হাজার সেনার জন্য অস্ত্র, জ্বালানি খাবার ও শীতকালীন রসদ নিয়ে গেছে। যা কয়েক দশকের মধ্যে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সবচেয়ে বড় লজিস্টিক অপারেশন। ভারতীয় সেনাবাহিনীকে অন্তত চার মাস বাইরের দুনিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় সেখানে থাকতে হবে।

দুর্গম মালভূমি অঞ্চলে রসদ সরবরাহের জন্য চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি ড্রোন ব্যবহার শুরু করেছে। এগুলোর মাধ্যমে খাবার, পানি ও ওষুধ সরবরাহ করা হচ্ছে।

পিএলএ’র অস্ত্রভাণ্ডারে এআর-৫০০সি হতে পারে একটি শক্তিশালী সংযোজন। অনেক বেশি ভার বহন, দীর্ঘ সময় ধরে অনেক উচ্চতায় উড়তে পারে বিধায় সেনাবাহিনীর বর্তমান সার্ভিসে থাকা ড্রোনের চেয়ে এটা হবে অনেক বেশি কার্যকর।