আমরা লাইভে English সোমবার, মার্চ ০১, ২০২১

নজর চীনে: ছয়টি সাবমেরিন তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করছে ভারত

DEFENCE-ENG-31-08-2020-India

চীনের সঙ্গে ভারতীয় নৌবাহিনীর পার্থক্য কমিয়ে আনতে ছয়টি প্রচলিত সাবমেরিমন সংগ্রহের জন্য ৫৫,০০০ কোটি রুপির মেগা প্রকল্পের দরপত্র প্রক্রিয়া শুরুর প্রস্তুতি নিয়েছে নয়া দিল্লী সরকার। সেপ্টেম্বরেই এই প্রক্রিয়া শুরুর জন্য সব প্রস্তুতি শেষ বলে জানা গেছে। 

রোববার এক সরকারি সূত্র জানায়, বহুল আলোচিত কৌশলগত পার্টনারশিপ মডেলে ভারতে এইসব সাবমেরিন তৈরি হবে। ফলে আমদানি নির্ভরতা কমিয়ে আনতে দেশীয় কোম্পানিগুলো বিদেশী বড় বড় প্রতিরক্ষা কোম্পানির সঙ্গে মিলে যৌথভাবে ভারতের জন্য অত্যাধুনিক সামরিক প্লাটফর্ম তৈরি করতে পারবে। এজন্য ইচ্ছুক সংস্থাগুলোকে এগিয়ে আসারআহ্বান জানানো হয়েছে।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ও ভারতীয় নৌবাহিনী যৌথ উদ্যোগে দরপত্র গ্রহণের ব্যবস্থা করছে। এই মেগা প্রজেক্টের নাম দেওয়া হয়েছে পি-৭৫ আই। রিকোয়েস্ট ফর প্রপোজাল (আরএফপি) অক্টোবর মাসের মধ্যেই প্রকাশ করা হবে বলে কেন্দ্রের তরফে বলে জানানো হয়েছে। এজন্য দুটি নৌবন্দর ও পাঁচটি বিদেশি সংস্থার নাম খসড়া তালিকায় রাখা হয়েছে। মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্পে এই প্রজেক্ট বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।

ভারতীয় নৌবাহিনী মোট ২৪টি নতুন সাবমেরিন কেনার কথা ভাবছে। এর মধ্যে ৬টি নিউক্লিয়ার অ্যাটাক সাবমেরিন। ভারতের হাতে এখন ১৫টি সাধারণ ও ২টি নিউক্লিয়ার অ্যাটাক সাবমেরিন রয়েছে। গ্লোবাল নাভাল অ্যানালিস্ট জানাচ্ছে চীনা নৌবাহিনীতে রয়েছে ৫০টিরও বেশি সাবমেরিন। যুদ্ধ জাহাজ রয়েছে প্রায় ৩৫০টি। আগামী ৮-১০ বছরে এই সংখ্যাটা চীন ৫০০তে নিয়ে যেতে চাইছে।

এদিকে, ভারতীয় নৌবাহিনী দক্ষিন চীন সাগরে যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে এই দক্ষিণ চীন সাগরে দ্রুত প্রভাব বিস্তার করার চেষ্টা করছে চীন। দুনিয়া সবচেয়ে ব্যাস্ত এই সমুদ্রপথে চীনের প্রভাব বিস্তার করার চেষ্টা নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে খোদআমেরিকাও। ইতিমধ্যেই এই অঞ্চলের বিভিন্ন জায়গায় কৃত্রিম দ্বীপ তৈরি করেছে বেজিং। পাশাপাশি রয়েছে অনেক মিলিটারি সরঞ্জামও।

জানা যাচ্ছে, গত ১৫ জুন গালওয়ানে ২০ ভারতীয় জওয়ান নিহত হওয়ার পর দক্ষিণ চীন সাগরে একটি যুদ্ধজাহাজ পাঠায় ভারত। ওই অঞ্চলে ভারত-সহ অন্যান্য দেশের উপস্থিতি নিয়ে বরাবরই আপত্তি করে আসছে চীন। ভারত-চীন বৈঠকেও এই বিষয়ে আভিযোগ জানিয়েছে চীন। 

এই দক্ষিণ চীন সাগরে ইতিমধ্যে রণতরী মোতায়েন করেছে আমেরিকা।