আমরা লাইভে English রবিবার, এপ্রিল ১৮, ২০২১

বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি হলেন মুকুল রায়

Screenshot 2020-09-27 073001
মুকুল রায়— ফাইল চিত্র।

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার তিন বছরের মাথায় দলের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতির দায়িত্ব পেলেন মুকুল রায়। শনিবার দলের সভাপতি জে পি নড্ডা কেন্দ্রীয় পদাধিকারিদের তালিকা ঘোষণা করেছেন।

মুকুলের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিজেপি কেন্দ্রীয় পদাধিকারিদের তালিকায় নাম রয়েছে অনুপম হাজরার। ঘটনাচক্রে তিনিও দলত্যাগী তৃণমূল নেতা। বোলপুরের প্রাক্তন সাংসদ অনুপম বিজেপির সর্বভারতীয় সম্পাদক পদ পেয়েছেন। দলের নয়া সর্বভারতীয় মুখপাত্রদের তালিকায় রয়েছেন দার্জিলিঙের বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তা। অন্যদিকে, বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক পদ খুইয়েছেন রাহুল সিনহা।

জানুয়ারি মাসে বিজেপির সবর্ভারতীয় সভাপতি পদের দায়িত্ব নেওয়ার প্রায় আট মাস পর এ দিন কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ এবং বিভিন্ন মোর্চার সভাপতিদের নাম ঘোষণা করেন নড্ডা। পূর্বসূরি অমিত শাহের কমিটির পদাধিকারিদের বেশ কিছু রদবদল করেছেন তিনি।

২০১৭-র নভেম্বরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন মুকুল রায়। কিন্তু ২০১৮-র পঞ্চায়েত ভোট এবং ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলালেও কেন্দ্র বা রাজ্য সংগঠনের কোনও গুরুত্বপূর্ণ পদ পাননি তিনি। কেবলমাত্র বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতির সদস্য করে রাখা হয়েছিল তাঁকে। রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলিপ ঘোষের ‘দাপটে’ মুকুল কিছুটা কোণঠাসা বলেও জল্পনা ছিল রাজনীতির কারবারিদের একাংশের মধ্যে।

যদিও ‘দক্ষ সংগঠক’ হিসেবে পরিচিত মুকুলকে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব গুরুত্বপূর্ণ পদ দিতে পারেন বলেও একাধিকবার শোনা গিয়েছে বিজেপির অন্দরে। শেষ পর্যন্ত এ দিন সেই জল্পনার অবসান হল। আমিত শাহের আমলে তৈরি পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত তিন কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষকের তালিকা অবশ্য অপরিবর্তিত রেখেছেন নড্ডা। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) শিব প্রকাশ, সাধারণ সম্পাদক কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং জাতীয় সম্পাদক অরবিন্দ মেননকে তাঁদের পদ ও দায়িত্বে পুনর্বহাল করা হয়েছে এ দিন।

তবে গত বছর লোকসভা ভোটের আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েই অনুপমের জাতীয় সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়া ‘চমকপ্রদ’ বলেই মনে করছে বিজেপির একাংশ। যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী হিসেবে লড়ে হেরে গেলেও ‘সিপিএমের দুর্গে’ বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যকে পিছনে ফেলে দ্বিতীয় হয়েছিলেন অনুপম। রাজ্য রাজনীতির ‘তরুণ মুখ’ হিসেবে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব তাঁকে তুলে আনতে চাইছে বলেই অনেকে মনে করছেন।