আমরা লাইভে English মঙ্গলবার, মার্চ ০২, ২০২১

সেরামের মঞ্জরী কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে পাঁচজন নিহত

sii_fire_c

ভারতের টিকা প্রস্তুতকারক সেরাম ইনস্টিটিউড অব ইন্ডিয়ার একটি কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে অন্তত পাঁচজন মারা গেছেন। গত বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে এই আগুনের সূত্রপাত। প্রাণহানির সংখ্যাটি নিশ্চিত করেছেন পুনে জেলা কালেক্টর রাজেশ দেশমুখ।  

স্থানীয় পুলিশ জানায়, সেরামের মঞ্জরী কারখানায় আগুন লাগার পর ওই ভবন থেকে নয় ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়। তবে এতে কোভিশিল্ড টিকা উৎপাদন ব্যাহত হবে না বলে জানিয়েছেন সেরামের মুখ্য নির্বাহী আদর পুনেওয়াল্লা।  

পুনে শহরে অবস্থিত সেরামের মঞ্জরী কারখানাতেই উৎপাদিত হচ্ছে, সারা ভারতে টিকাদানে ব্যবহৃত কোভিশিল্ড প্রতিষেধক। তবে যেখানে আগুন লাগে সেটি ছিল নির্মাণাধীন একটি অংশ। এটি কোভিশিল্ডের মূল উৎপাদক ইউনিট থেকে ১ কি.মি. দূরে অবস্থিত। 

এরপরেই আঞ্চলিক প্রশাসনিক কর্মকর্তা প্রাণহানির সর্বশেষ তথ্য জানালেন। 

তবে টুইটে পুনেওয়াল্লা আরও জানান, আমি সরকার এবং দেশবাসীকে আশ্বস্ত করতে চাই যে আগুনের কারণে কোভিশিল্ড উৎপাদনে কোনো প্রভাব পড়বে না। এমন জরুরি কিছু বিপদ-আপদের শঙ্কা থেকেই আমি আগে থেকে একাধিক ভবন উৎপাদন কাজ চালানোর জন্যে প্রস্তুত রেখেছিলাম। @পুনেসিটিপুলিশ এবং দমকল বিভাগকে আমার আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।" 

এদিকে মহারাষ্ট্রের উপ-মুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ার জানান, তার সরকার এঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে।

গতকাল দুপুর ২.৪৫ মিনিটে সেরাম ইনস্টিটিউডের সেজ-৩ ভবনের চতুর্থ ও পঞ্চমতলায় আগুনের সূত্রপাত ঘটে। এর দুই ঘন্টার মধ্যেই তা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয় বলে জানিয়েছে পুনে পুলিশ। 

পুলিশের ডেপুটি কমিশনার নম্রতা পাতিল বার্তা সংস্থা পিটিআই'কে বলেন, আগুন লাগার পর ঘটনাস্থল থেকে নয় জনকে উদ্ধার করা হয়।  

তবে তার আগে সেরামের ওই কারখানায় আগুন লাগার চিত্র সামাজিক গণমাধ্যমে ভাইরাল আকারে ছড়িয়ে পড়ে।দমকল বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, আগুনের সঠিক কারণ এখনও শনাক্ত করা যায়নি।

আরেক কর্মকর্তা জানান, দেশটির জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থার একটি উচ্চ-পর্যায়ের টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।