আমরা লাইভে English বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২১

মিয়ানমারে সংঘাত বন্ধে দূত নিয়োগ আসিয়ানের

https%3A%2F%2Fs3-ap-northeast-1.amazonaws.com%2Fpsh-ex-ftnikkei-3937bb4%2Fimages%2F5%2F7%2F3%2F2%2F35662375-4-eng-GB%2F2021-04-23T085731Z_1723602297_RC2K1N9C16DM_RTRMADP_3_MYANMAR-POLITICS-ASEAN

মিয়ানমারের সংঘাত শান্তিপূর্ণভাবে থামাতে বিশেষ দূত নিয়োগ দিয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ান। ওই নিয়োগের অনুমোদন দিতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জোটের সদস্য ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি। রয়টার্সের খবর।

মিয়ানমারে নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করা সামরিক জান্তাপ্রধান মিন অং হ্লাইং নিজেকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা দেওয়ার পর সোমবার এই দাবি জানানো হলো। একই সঙ্গে মিয়ানমারের প্রতিদ্বন্দ্বী পক্ষগুলোকে আলোচনার টেবিলে বসানোর পরিকল্পনায় খুব কমই অগ্রগতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

গত ১ ফেব্রুয়ারিতে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে মিয়ানমারের অং সান সু চি সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে সেনাবাহিনী। অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে রাজপথে বিক্ষোভের পাশাপাশি জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে গেরিলা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন বিরোধীরা। ওই অভ্যুত্থানের ছয় মাস পর দেশটিতে সংঘাত বন্ধ এবং জান্তা সরকার ও তার বিরোধীদের মধ্যে আলোচনার সুযোগ তৈরি করতে সোমবার বিশেষ দূত নিয়োগ চূড়ান্ত করে আসিয়ানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। ওই জোটের সদস্যদেশ মিয়ানমারও। এখন মিয়ানমারের জান্তা সরকার ওই দূতকে অনুমোদন দিলেই তিনি কাজ শুরু করতে পারবেন।

এ বিষয়ে সোমবার এক ভিডিও কনফারেন্সে সংবাদমাধ্যমকে ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি বলেন, মিয়ানমারে অসন্তোষ থামাতে পাঁচ দফা পরিকল্পনা বাস্তবায়নে তাৎপর্যপূর্ণ কোনো অগ্রগতি করতে পারেনি জোটটি। দেরির বিষয়টি আসিয়ানের জন্য ভালো কিছু নয়।

মিয়ানমারের সংকট কূটনৈতিকভাবে সমাধানের জন্য জোরালো পদক্ষেপ নিতে আসিয়ানের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, চীনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ।

রেতনো বলেন, ইন্দোনেশিয়া আশা করছে, আসিয়ানের বিশেষ দূত নিয়োগের প্রস্তাব মিয়ানমার শিগগিরই অনুমোদন করবে। মিয়ানমারে গিয়ে মুক্তভাবে চলাফেরা ও সব পক্ষের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ দিতে হবে এই দূতকে। যেসব নেতা কারাগারে আছেন, তাঁদের সঙ্গেও দেখা করার সুযোগ দিতে হবে।

তবে ওই গুরুত্বপূর্ণ পদে কাকে মনোনীত করা হয়েছে, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি রেতনো। তবে আসিয়ানের কূটনীতিকেরা বলেছেন, ব্রুনেইয়ের সেকেন্ড পররাষ্ট্রমন্ত্রী এরিওয়ান ইউসুফকে ওই পদে দেখা যেতে পারে।