আমরা লাইভে English বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৫, ২০২১

মিয়ানমারের নির্বাচনী অ্যাপে জাতিগত চিহ্নিতকরণ ব্যবস্থার সমালোচনা

Myanmar

মিয়ানমারের আসন্ন নির্বাচনে প্রার্থীদের পরিচয় বিষয়ক স্মার্টফোনের অ্যাপে বিতর্কিত জাতিগত পরিচয় যুক্ত করার সঙ্গে সেখানে গণতন্ত্র জোরদার ও নির্বাচন অনুষ্ঠানে সহায়ক একটি সুইডিশ কোম্পানি জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে। অন্তত দুজন প্রার্থীর ক্ষেত্রে এ বিষয়টি দেখা গেছে। 

এক বিবৃতিতে ইন্টারন্যাশনাল ইন্সটিটিউট ফর ডেমক্রেসি অ্যান্ড ইলেক্টোরাল এসিসট্যান্স (ইন্টারন্যাশনাল আইডিইএ) এক বিবৃতিতে জানায় যে, এমভোটার২০২০ মোবাইল এপ্লিকেশনের যাবতীয় দায় একমাত্র মিয়ানমারের ইউনিয়ন নির্বাচন কমিশনের (ইউইসি)। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের তহবিলপুষ্ট ইউইসি, এশিয়া ফাউন্ডেশন ও স্টেপ ডেমক্রেসির এই প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ করে  ইন্টারন্যাশনাল আইডিইএ। মঙ্গলবার ইসি’র প্রচারণা ওয়েবসাইটে এই অ্যাপ উদ্বোধন করা হয়। প্রার্থী ও ভোটদান প্রক্রিয়া সম্পর্কে ভোটারদের অবহিত করতে এই অ্যাপ চালু করা হয়েছে।

৮ নভেম্বর এই নির্বাচন উপলক্ষে চালু করা অ্যাপটিতে ‘জাতি’, ‘ধর্ম’ ও ‘পিতামাতার বংশ’ ক্যাটাগরি যুক্ত থাকায় তা বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। অন্তত দুটি ক্ষেত্রে প্রার্থীকে বাঙ্গালী বা আধা-বাঙ্গালী বলা হয়েছে। সরকার রোহিঙ্গাদের বুঝাতে এই পরিচয় ব্যবহার করে। বৌদ্ধপ্রধান মিয়ানমারে মুসলিম সংখ্যালঘু সম্প্রদায় রোহিঙ্গারা ব্যাপক নিপীড়ন ও বৈষম্যের শিকার।

বুধবার এক বিবৃতিতে নাগরিক সংগঠন ‘জাস্টিস ফর মিয়ানমার’ অবিলম্বে অ্যাপ থেকে এসব ক্যাটাগরি মুছে ফেলতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও দাতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।