আমরা লাইভে English রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১

সু চির মামলার শুনানি আবারও পেছাল

prothomalo-bangla_2021-04_47a9fb40-f63b-4bdc-b612-312231a3ac56_Aung_San_Suu_Kyi

মিয়ানমারে জান্তার হাতে আটক অং সান সু চির মামলার কার্যক্রম আবারও পিছিয়েছে। আগামী ১০ মে পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম মুলতবি করা হয়েছে। আজ সোমবার শুনানি শেষে সু চির আইনজীবী মিন মিন সোয়ে এ কথা জানিয়েছেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারির সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকে আটক রয়েছেন সু চি। তাঁর বিরুদ্ধে ছয়টি মামলা করেছে জান্তা সরকার। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুতর মামলা হয়েছে সরকারি কর্মকর্তাদের গোপনীয়তা আইন ভঙ্গের অভিযোগে। অন্যদিকে জান্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, সু চিকে তাঁর আইনজীবীদের সঙ্গে সরাসরি দেখা করার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।

এ বিষয়ে এএফপিকে মিন মিন সোয়ে বলেন, ‘১২ সপ্তাহ ধরে চেষ্টা করে যাচ্ছি। এখনো তাঁর (সু চি) সঙ্গে সামনাসামনি দেখা করার অনুমতি মেলেনি। এর মধ্যে ১০ মে পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

এ সময় মিন মিন সোয়ে আরও বলেন, ‘আমার মনে হয় সু চিকে টিভি দেখতে কিংবা সংবাদপত্র পড়তে দেওয়া হয় না। মিয়ানমারের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি অবগত নন বলেই মনে হয়েছে।’

সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকেই মিয়ানমারজুড়ে আড়াই মাসের বেশি সময় ধরে টানা বিক্ষোভ চলছে। দাবি উঠেছে, সেনাশাসন প্রত্যাহার ও সু চির মুক্তির। গতকালও বিক্ষোভকারীরা সু চির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) লাল পতাকা হাতে মিছিল করেছেন। স্লোগান দিয়েছেন, ‘আমাদের নেতাকে মুক্তি দিন।’

মিয়ানমারে গত নভেম্বরের নির্বাচনে জয় পায় এনএলডি। ওই নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করে অভ্যুত্থান ঘটায় দেশটির সেনাবাহিনী। এরপর থেকে দেশটিতে বিক্ষোভ চলছে। ঝরছে রক্ত। চলমান বিক্ষোভ দমনের নামে সেনা-পুলিশের গুলিতে এখন পর্যন্ত শিশুসহ ৭৫০ জনের বেশি বেসামরিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে অধিকার সংগঠন অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স (এএপিপি)। আটক হয়েছেন সাংবাদিক, শিল্পীসহ তিন সহস্রাধিক বিক্ষোভকারী।

এদিকে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারে শান্তি ফেরাতে গত শনিবার ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় বৈঠকে বসেছিলেন আঞ্চলিক জোট আসিয়ানের নেতারা। উপস্থিত ছিলেন মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইংও। বৈঠক শেষে প্রকাশিত বিবৃতিতে মিয়ানমারে রক্তপাত বন্ধে পাঁচ দফা ঘোষণা করেছে আসিয়ান।

আসিয়ানের পাঁচ দফায় মিয়ানমারে বিবদমান সব পক্ষকে অবিলম্বে রক্তপাত বন্ধ ও সংযত আচরণ করার পাশাপাশি সংকট নিরসনে গঠনমূলক সংলাপে বসার আহ্বান জানানো হয়েছে। মধ্যস্থতার জন্য দূত পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছে আঞ্চলিক এ জোট। একই সঙ্গে মিয়ানমারে মানবিক সহায়তা প্রদানের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত আইনপ্রণেতাদের নিয়ে গঠিত ছায়া সরকার, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জাতিসংঘ এ পাঁচ দফাকে স্বাগত জানিয়েছে। দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য আসিয়ানসহ সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।