আমরা লাইভে English রবিবার, জুন ২৬, ২০২২

মহাজগৎ আমাকে পাকিস্তানে এনেছে আর পাকিস্তানীরা আমাকে ইসলামের পথ দেখিয়েছে: রোজি গ্যাব্রিয়েল

পাকিস্তানে গত বছর দীর্ঘ সময় অবস্থান করার পর ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন কানাডার পর্যটক রোজি গ্যাব্রিয়েল। সাদা গাউন ও মাথায় স্কার্ফ পরা এবং কোরান হাতে একটি ছবি পোস্ট করেছেন গ্যাব্রিয়েল। ছবির ক্যাপশানে ইসলামের পথে যাত্রার বিষয়টি স্মরণ করেছেন তিনি। 

তিনি উল্লেখ করেছেন যে, যে ভালোবাসা আর সমর্থন তিনি পাকিস্তানিদের কাছ থেকে পেয়েছেন, সেটা তার দীর্ঘ দিনের যন্ত্রণা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করেছে। পাকিস্তানে অবস্থানকালে তিনি বালুচিস্তান থেকে নিয়ে উত্তরাঞ্চল সফর করেছেন। 

ইন্সটাগ্রাম পোস্টে তিনি বর্ণনা করেছেন যে, চার বছর আগে তিনি তার ধর্ম ত্যাগ করেন, কারণ যে বিশ্বাস নিয়ে তিনি বড় হয়েছেন, সেটার তার জন্য কোন অর্থ বহন করছিল না। এর মাধ্যমেই স্রষ্টার অভিমুখে তার আধ্যাত্মিক যাত্রা শুরু হয়। 

তিনি আরও বলেছেন যে, শিশুকাল থেকে স্রষ্টার সাথে তার একটা অনন্য সম্পর্ক ছিল। তার জীবন কখনই সহজ ছিল না এবং তার মধ্যে অনেক ক্ষোভ আর যন্ত্রণা জমা হয়েছিল। পাকিস্তানে অবস্থানকালে তার এই উপলব্ধি হয়েছে যে, এমনকি তার যন্ত্রণাটাও তার জন্য স্রষ্টার আশীর্বাদ, যেটা তাকে সঠিক পথে এগিয়ে নিচ্ছে। 

শান্তি, ক্ষমা খুঁজে পেতে এবং নিজেকে যন্ত্রণা আর ক্ষোভ থেকে মুক্তি দিতে তিনি সফর শুরু করেন। 

তিনি লিখেছেন, “মহাজগৎ আমাকে পাকিস্তানে নিয়ে এসেছে। আমার মধ্যে যন্ত্রণা আর আমিত্বের যেটুকু অবশিষ্ট ছিল, সেটাকে মুছে দেয়ার জন্য এই সফর আমাকে শুধু চ্যালেঞ্জই ছুড়ে দেয়নি, বরং আমাকে পথও দেখিয়েছে। আমার যাত্রাপথে আমি মানুষের দয়া আর বিনম্র আচরণের সাথে পরিচিত হয়েছি এবং এটা আমাকে আরও পথ খুঁজতে উদ্বুদ্ধ করেছে”।

রোজি গ্যাব্রিয়েল বলেছেন যে, মুসলিম দেশগুলোতে এক দশক ধরে সফরের মাধ্যমে ইসলামের সত্যিকারের স্পিরিট আমার কাছে ফুটে উঠেছে, যেটা হলো শান্তি, নম্রতা আর মানবতা। কিন্তু ইসলাম আজ বিশ্বে সবচেয়ে অপপ্রচারের শিকার বলে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন। তিনি আরও বলেন যে, এক হিসেবে আগেই তিনি মুসলিম হয়ে গিয়েছিলেন, এখন শাহাদার মাধ্যমে একক স্রষ্টার পথে যাত্রা শুরু হলো তার। 

সোশাল মিডিয়ায় প্রতিক্রিয়া

তার বৃহস্পতিবারের ঘোষণার পরপরই টুইটারে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া ছড়িয়ে পড়ে। ইসলাম গ্রহণ করায় পাকিস্তানের সোশাল মিডিয়ার ব্যবহারকারীরা রোজি গ্যাব্রিয়েলকে অভিনন্দন জানান। এবং বিশ্ব পাকিস্তানের যে শান্তিপূর্ণ চিত্রটি অবজ্ঞা করে যাচ্ছে, সেই ছবিটি তুলে ধরায় তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। সারা বিশ্বে ইসলামকে ভুলভাবে তুলে ধরার যে প্রবণতা, সেটি নিয়ে কাজ করার কারণে তার প্রশংসা করেন সবাই। 

বিদেশী সফরকারীদেরকে তুষ্ট করেছে পাকিস্তানের আতিথেয়তা

ইতোমধ্যে, বেশ কিছু বিদেশী সফরকারী ব্লগার পাকিস্তান সফরকালে যে সৌন্দর্য আর আতিথেয়তা উপভোগ করেছেন, তার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। এমনকি রোজি গ্যাব্রিয়েলও বিবিসি উর্দুর সাথে সাক্ষাতকারে উল্লেখ করেছেন যে, পুরো পাকিস্তানেই তিনি মানুষের কাছ থেকে কি ধরণের উষ্ণ আতিথেয়তা পেয়েছেন। 

পোলিশ ট্রাভেল ব্লগার ইভা জু বেক তার ভিডিওতে বিশ্বের সবচেয়ে শীর্ষ পর্যটন গন্তব্য হওয়ার ব্যাপারে পাকিস্তানের সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেছেন। 

আকর্ষণীয় একটি ভিডিওতে তিনি পাকিস্তানের বৈচিত্রপূর্ণ ভূ প্রকৃতি উপভোগের অভিজ্ঞতা বিনিময় করেছেন।তিনি বালুচিস্তানের চিত্তাকর্ষক ভূপ্রকৃতি থেকে নিয়ে কারাকোরাম অঞ্চলের পর্বত চূড়ার সৌন্দর্য তুলে ধরেন।

গত বছর মার্শি জিন নামের ২১ বছর বয়সী এক চীনা পর্যটক পাকিস্তান সফর করেন। স্থানীয় মিডিয়ায় দেয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন যে, শুরুতে পাকিস্তানে ৪৫ দিন থাকার পরিকল্পনা ছিল তার। কিন্তু এখানে যে আতিথেয়তা তিনি পেয়েছেন, সে কারণে ছয় মাস তিনি পাকিস্তানে ছিলেন। 

মার্শা জিন্স বলেন যে, সঙ্ঘাত পীড়িত দেশ হিসেবে পাকিস্তানের যে পরিচয় ছড়ানো হয়েছে, সে ধারণা তার পুরোপুরি পাল্টে গেছে। 

ড্রু বিন্সকি নামের এক আমেরিকান ট্রাভেল ব্লগার পাকিস্তান সফরে এসে এখানকার প্রাণবন্তু সংস্কৃতি এবং উষ্ণতার প্রশংসা করেন। পাকিস্তানের চোখ ধাঁধাঁনো ভূপ্রকৃতি ছাড়াও, পাকিস্তানের চমৎকার আতিথেয়তা তাকে মুগ্ধ করে।