আমরা লাইভে English বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৫, ২০২১

আফগানিস্তানের জন্য পাকিস্তানের নতুন ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ ভিসা নীতি চালু

REPORT-4-ENG-01-10-2020-Pak (1)

আফগানিস্তানের জন্য মঙ্গলবার নতুন ভিসা নীতি চালু করেছে পাকিস্তান। দুই দেশের মধ্য ব্যবসায় এবং জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানোর জন্য নতুন এই নীতি চালু করা হলো। 

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা এই নীতি অনুমোদন দিয়েছে। এর ফলে আফগান নাগরিকদের জন্য দীর্ঘমেয়াদি ব্যবসায়, এবং বিনিয়োগ ও শিক্ষার্থী ভিসাসহ মাল্টিপল এন্ট্রি ভিসা পাওয়া সহজ হবে। 

এখন পর্যন্ত ইসলামাবাদ আফগান সফরকারীদের জন্য শুধুমাত্র একবার প্রবেশের উপযোগী ভিসা দিয়ে এসেছে। 

আফগানিস্তানে নিযুক্ত পাকিস্তানের বিশেষ দূত মোহাম্মদ সাদিক এক টুইটে বলেছেন, “স্বাস্থ্য ভিসার নতুন ক্যাটেগরিও’ তৈরি করা হয়েছে যাতে আফগানিস্তানের রোগিরা সীমান্ত দিয়ে পৌঁছেই অন-অ্যারাইভাল ভিসা পেতে পারে। 

সাদিক বলেন, আফগানিস্তানের সাথে সবগুলো সীমান্ত টার্মিনাল রয়েছে পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখাওয়া সীমান্তবর্তী প্রদেশের সাথে। এই টার্মিনালগুলো এখন থেকে সপ্তাহে চারদিন খোলা থাকবে। মঙ্গলবার থেকে এই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। 

স্থলবেষ্টিত আফগানিস্তান বহু দশক ধরে মূলত পাকিস্তানের উপর দিয়ে পাকিস্তানের সমুদ্র বন্দরগুলোর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পরিচালনা করে এসেছে। পারস্পরিক উত্তেজনা বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে অবশ্য সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের অবনতি হয়। 

কর্মকর্তারা আশা করছেন যে, নতুন ভিসা এবং বাণিজ্য সম্পর্কিত পদক্ষেপগুলো দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক সম্পর্ক বাড়াতে এবং আফগান ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী এবং পাকিস্তানে বসবাসরত আফগান শরণার্থীদের উদ্বেগ নিরসনে সহায়ক হবে। 

শান্তি আলোচকের সফর

ইসলামাবাদের এই ঘোষণাগুলোকে কর্মকর্তারা আফগানিস্তানের সাথে আস্থা বৃদ্ধির পদক্ষেপ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। এমন সময় এই ঘোষণা আসলো, যখন আফগানিস্তানের মুখ্য শান্তি আলোচক আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ আনুষ্ঠানিক সফরে পাকিস্তানে এসেছেন। 

আব্দুল্লাহর আগমনের আগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আফগান সীমান্ত বরাবর ১২টি বাণিজ্যিক বাজার চালুর বিষয় অনুমোদন করেন যাতে দরিদ্র পীড়িত জনগোষ্ঠির জন্য জীবিকার সুযোগ তৈরি হয়। 

আব্দুল্লাহ এবং তার প্রতিনিধি দল মঙ্গলবার খানের সাথে বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ও আফগান শান্তি প্রক্রিয়ার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা হয়। 

মঙ্গলবার ওই বৈঠকের পর এক টুইটে আব্দুল্লাহ লিখেছেন, “আফগানিস্তানের নাগরিকদের জন্য ভিসা সংক্রান্ত পদক্ষেপের জন্য পাকিস্তান সরকারকে আমি ধন্যবাদ জানাই। এই পদক্ষেপ দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান এবং ক্রমসম্প্রসারণশীল সম্পর্কের বহিপ্রকাশ”।

অবিশ্বাসের ইতিহাস

পাকিস্তানে প্রায় ৩ মিলিয়ন আফগান শরণার্থী ও অর্থনৈতিক অভিবাসী বাস করছে, যারা তাদের দেশের ৪০ বছরের সহিংসতা, ধর্মীয় দমন ও দারিদ্র থেকে বাঁচতে পাকিস্তানে আশ্রয় নিয়েছে। 

ইসলামাবাদ আর কাবুলের সম্পর্ক দীর্ঘদিন ধরে অবিশ্বাস আর সন্দেহের মধ্যে আটকা ছিল। দুই দেশের মধ্যে প্রায় ২৬০০ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে, দুই দেশই একে অন্যের বিরুদ্ধে জঙ্গিদের মদদ দেয়ার অভিযোগ করে আসছে, যারা দুই দেশের মধ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আসছে। 

কূটনীতিক, কর্মকর্তা, এবং নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের নিয়ে পাকিস্তানের রাজধানীতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আব্দুল্লাহ বলেন, “আমি আত্মবিশ্বাসী যে, আমরা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের একটা নতুন অগ্রযাত্রা শুরু করতে যাচ্ছি, যেখানে পারস্পরিক শ্রদ্ধা এবং আন্তরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে দুই দেশ সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাবে”।