আমরা লাইভে English রবিবার, জুন ২৬, ২০২২

ভারতে কেন বড় বাজি ধরছে ফেসবুক?

sa-brief-eng-24-04-2020-1
মুম্বাইয়ে জিও ওয়াল্ড সেন্টারের সামনে একটি গাছের গোড়ায় পানি দিচ্ছে এক কর্মী

সাউথ এশিয়া ব্রিফ-এ স্বাগত। এ সপ্তাহের বড় খবর মহামারী ছাড়াও রয়েছে ভারতে ফেসবুকের ৫.৭ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ এবং কেন এটি গুরুত্বপূর্ণ।

এছাড়া আছে প্রাণঘাতি সংঘর্ষে আফগানিস্তানের শান্তি প্রক্রিয়া ভেস্তে যাওয়ার উপক্রম হওয়া, শ্রীলঙ্কা ইস্টার হামলার এক বছর পুর্তি পালন এবং তৈরি পোশাক কারখানার লেঅফ নিয়ে বাংলাদেশে গোলযোগ।

এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিকে বন্ধু করেছে ফেসবুক

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে ফেসবুক মঙ্গলবার এক অবাক করা ঘোষণা দেয়। তারা জিও প্লাটফর্মের ৯.৯৯ শতাংশ মালিকানা ৫.৭ বিলিয়ন ডলারে কিনে নিয়েছে। ফেসবুকের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় একক বিনিয়োগটি একটি বড় বাজিও বটে।

এই বিনিয়োগের কারণে সেলুলার ইন্টারনেট সার্ভিস থেকে বৃহত্তর ওয়ান-স্টপ ডিজিটাল বিশ্বে জিও’র উত্থান ঘটাতে পারে। সম্ভবত এটা হতে পারে চীনের উইচেটের মতো। এই চুক্তির কারণে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ারের দাম বেড়ে গেছে। সেই সাথে আবারো এশিয়ার সবচেয়ে ধনি আলিবাবার জ্যাক মা-কে টপকিয়ে গেছেন মুকেশ আম্বানি।

ফেসবুকের কি লাভ? এই বিপুল বিনিয়োগের পর ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকেরবার্গ পোস্ট করে জানিয়েছেন যে, ‘এই দুই বৃহৎ প্রতিষ্ঠানের যৌথ উদ্যোগ ভারতে বাণিজ্যের সম্ভাবনাকে উন্মুক্ত করবে।’ তাঁর সংযোজন, ‘লকডাউনে ক্রেতাদের সঙ্গে সংযোগ রাখতে ও ব্যবসায়িক বৃদ্ধির লক্ষ্যে বশিরভাগ উদ্যোক্তারই হাতিয়ার ডিজিটাল মাধ্যম। এ ক্ষেত্রে আমরা তাদের সহায়ক হতে পারি। ভারতে ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধি ও নতুন সম্ভাবনার উদ্দেশেই আমরা জিও-র সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছি।’ ভারতে হোয়াটসঅ্যাপের ৪০০ মিলিয়ন ব্যবহারকারী রয়েছে। এটিরও মালিক ফেসবুক। এরপরও বড় হওয়ার সুযোগ রয়েছে ফেসবুকের। অন্তত অর্ধবিলিয়ন ভারতীয় এখানো ইন্টারনেট ব্যবহার করে না। 

রিলায়েন্স জিও’র লাভ কি? ফেসবুকের শেয়ার অংশীদারিত্ব প্রসঙ্গে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের কর্ণধার মুকেশ আম্বানি উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘প্রত্যেক ভারতীয় ও দেশের ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের বিকাশ-উন্নয়নমুখি রূপান্তরের স্বার্থে আমাদের দীর্ঘমেয়াদী অংশীদার হিসাবে ফেসবুককে স্বাগত জানাই।’ লকডাউনের ফলে দেশের অর্থনীতিতে মন্দা দেখা দিয়েছে। আম্বানি মনে করেন, করোনা পরিস্থিতি মেটার অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ভারতীয় অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে। এক্ষেত্রেও ফেসবুক-জিও সংযুক্তির বিশেষ ভূমিকা থাকবে।

মূলত ভারতের ৬০ মিলিয়ন ছোট ও মাঝারি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোতে সহায়তাই সংস্থার লক্ষ্য। কারণ এগুলিতেই বেশিরভাগ কর্মসংস্থান তৈরি হয়। বর্তমানে মূল লড়াই করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে। এই লড়াইতে দুই সংস্থাই শামিল। আগামী সময়ে মানুষ এবং ব্যবসায়ীদের সহায়তা করার জন্য সংস্থা কাজ করছে। 

জিও-র অংশীদার হয়ে হোয়াটসঅ্যাপকে সুপার অ্যাপে রূপান্তর করতে আগ্রহী ফেসবুক। এর মাধ্যমে কর্মসংস্থানেরও নতুন জোয়ার আসবে বলে জানিয়েছেন রিলায়েন্সের মালিক। তিনি বলেন, “এই পদ্ধতিতে ছোট ব্যবসায়ীরা আরও বেশি সংখ্যক কাজের সুযোগ তৈরি করতে পারবেন। ফলে কর্মসংস্থান বাড়বে। সেইসঙ্গে চাষি, স্বাস্থ্য পরিষেবা, মহিলা ও যুব সমাজের উন্নতিতে সাহায্য করবে এই নতুন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম।

কেন গুরুত্বপূর্ণ।অর্থনৈতিক ফলালফ ছাড়াও, বড় প্রশ্নটি হলো ভারত ভবিষ্যতে কি ধরনের ইন্টারনেট পেতে যাচ্ছে। এটা কি বিনামূল্যে, যেমনটা পশ্চিম ইউরোপের বেশিরভাগ দেশে রয়েছে? নাকি এতে আরো বাধা আসবে, নিয়ন্ত্রিত হবে চীনের মতো?

ভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধির মধ্যেই রমজানের আগমন। দক্ষিণ এশিয়ায় নিশ্চিত করোনা রোগির সংখ্যা ৩৮ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে লকডাউনের মধ্যে থেকেও ভারত এর সংক্রমণ থামাতে পারেনি। কিছু কিছু দেশ অর্থনীতির কিছু কিছু খাত খুলে দিয়েছে। ভারতেও গ্রামীণ এলাকায় কৃষি ও শিল্প তৎপরতা শুরু হয়েছে। একটি উদ্বেগ হলো দক্ষিণ এশিয়ায় ৫০০ মিলিয়নের বেশি মুসলমানের বাস। শুক্রবার থেকে পবিত্র রমজান মাস শুরু হয়েছে। পাকিস্তান সরকার শর্ত সাপেক্ষে মসজিদ খোলার অনুমতি দিয়েছে। দেশটির ঘন জনবসতির কারণে এসব শর্ত মানা খুব কঠিন হতে পারে।

sa-brief-eng-24-04-2020-2ট্রাম্পের অভিবাস পরিকল্পনা। সোমবার রাতে ট্রাম্পের একটি টুইট দক্ষিণ এশিয়াসহ আরো বহু দেশের শ্রমিকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি করোনাভাইরাসের প্রসঙ্গ টেনে লিখেন, অদৃশ্য শত্রুর হামলার আলোকে আমি অস্থায়ীভাবে অভিবাসন বন্ধের একটি নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করছি। তিনি নতুন গ্রিনকার্ড ইস্যু করা বন্ধ করে দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রে এখন গ্রিন কার্ডের জন্য অপেক্ষমান ৮০০,০০০ মানুষের বেশিরভাগ ভারতীয়। 

আফগানিস্তানে সংঘাত চলছে। চলতি সপ্তাহে আফগানিস্তানের বিভিন্নস্থানে হামলা চালিয়ে কয়েক ডজন নিরাপত্তা সদস্যকে হত্যা করেছে তালেবান। সরকার পবিত্র রমজান মাসে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানালেও তা প্রত্যাখ্যান করেছে তারা। বিদ্রোহী গোষ্ঠীটি জানিয়েছে সম্ভাব্য শান্তি প্রক্রিয়া যদি পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়ন করা যেত তাহলে যুদ্ধবিরতি সম্ভব ছিলো। তবে তাতে বাধা পড়ায় অস্ত্র রেখে দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন গোষ্ঠীটির মুখপাত্র সুহাইল শাহিন। এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, যুদ্ধবিরতির আহ্বান যৌক্তিক নয়।  তবে শান্তি প্রক্রিয়া নিয়ে মতবিরোধ এবং বন্দি বিনিময়ে বিলম্বকে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার হিসেবে উল্লেখ করেছেন তালেবান মুখপাত্র। সুহাইল শাহিনের অভিযোগ করোনাভাইরাসের মধ্যে কারাবন্দিদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে তালেবান সরকার।

 

অদ্ভুত ও সমাপ্তি

sa-brief-eng-24-04-2020-3
নয়া দিল্লিতে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের সামনে জনমানবহীন পরিবেশে আকাশে কাক উড়ছে

পরিচ্ছন্ন নীল আকাশ। করোনাকালে দক্ষিণ এশিয়াজুড়ে যে অপ্রত্যাশিত আশার ঝলকানি দেখা যাচ্ছে তা হলো পরিচ্ছন্ন বাতাস। ২৪ মার্চ ভারতে লকডাউন ঘোষণা করার এক সপ্তাহ পরই নয়া দিল্লির বায়ু দূষণ ৭১% কমে যায়। ফলে এখন চারদিকে পরিচ্ছন্ন নীল আকাশ। অধিবাসীরা জানান যে তারা এখন প্রাণভরে নিশ্বাস নিতে পারছেন। আগের সেই ধোঁয়াটে ভাব ও ধাতব গন্ধ নেই। শত শত মাইল দূর থেকে মানুষ এখন এভারেস্ট শৃঙ্গ দেখতে পাচ্ছে।

 

চলতি সপ্তাহে এ পর্যন্তই।